রোমান্টিক গল্প

ইসলামিক গল্প ও কাহিনী

/

by Shah suhail

/

No Comments

ইসলামিক গল্প ও কাহিনী – রাজা ও ভিক্ষুকের পারস্পরিক দান

ইরানে একজন দান বীর রাজা বাস করতেন। তার দানের খ্যাতি পুরো দেশে ছড়িয়ে পড়েছিলো।

লোকমুখে রাজার দানের কথা শুনে একজন ভিক্ষুর রাজার দরবারে গিয়ে হাজির হলো।

কিন্তু ভিক্ষুক রাজার কাছে হাত পাতার পর রাজা উল্টো ভিক্ষুকের কাছে হাত পেতে বসলেন। ভিক্ষুক ভাবলো রাজাকে তো আর না বলা যায় না।

তাই কাটপাটি থেকে পাঁচটি চালের দানা বের করে রাজাকে দিয়ে বলল আমি দরিদ্র ভিক্ষুক কি আর দিতে পারি আপনাকে।

রাজা বললেন ধন্যবাদ তোমাকে। আমার উপহার পৌছে যাবে তোমার কাছে। পরদিন ভিক্ষুকের বাড়িতে রাজার সৈন্যরা বস্তা ভরে চালডাল নিয়ে গেল।

ভিক্ষুক চালগুলো মাপতে গিয়ে দেখে বড় বড় পাঁচটি স্বর্ণমুদ্রা।

ভিক্ষুক বুঝলো এটা রাজাকে দেওয়ার তার পাঁচটি স্বর্ণমুদ্রার র্বিনিমযয়ে রাজা পাঠিয়েছেন।

তখন ভিক্ষুকটি হায় হায় করে বলতে লাগলো -যদি এক মুঠো চাল দিতাম। তাহলে আজ কতগুলো স্বর্ণমুদ্রা পেতাম।

গল্পটা আমাদের জীবনের প্রতিটা মানুষের জন্য শিক্ষনীয়। যিনি সমস্থ রাজার রাজা – মহান আল্লাহ।

তিনি আমাদের ঐ ভিক্ষুকের মতো কিছু সম্পদ দিয়েছেন।

অতপর তিনি দেখতে চান আমরা আমাদের সেই সম্পদ থেকে কতটুকু পরিমাণ আল্লাহকে দিতে ভালোবাসি। আর আল্লাহ আমাদের সেই দান অনুযায়ী প্রতিদান দেন।

ইসলামিক গল্প ও কাহিনী – হাতেম তাই ও বুড়ি মা

ইসলামিক গল্প ও কাহিনী – হাতেম তাই দানশীলতার কথা আমরা অনেকেই জানি। একবার হাতেম তাই বলছিলেন তোমরা আমাকে বল দানশীল।

কিন্তু আজ আমি তোমাদের এমন এক নারীর গল্প বলবো যিনি দানশীলতায় আমাকেও ছাড়িয়ে গেছে।

বহুদিন আগে একবার আমি কিছু লোকজন নিয়ে এক মরুভূমি অতিক্রম করছিলাম। পথে ক্লান্ত ও ক্ষুধার্ত হয়ে পড়ি। অবস্থা বেগতিক দেখে পথে থামলাম। ্

ঐখানে একটি কুটিরে একজন ছেলে থাকতো। সে আমাদেরকে দেখে ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়ল।

ঘোড়া থেকে নামাতে সাহায্য করলো। সুশীতল গাছের ছায়ায় বসে দিয়ে ঠান্ডা পানিপান করতে দিল।

ছেলেটাকে দেখলাম সে জঙ্গলের দিকে রওনা হতেই তার মা বলে উঠলেন কোথায় যাচ্ছ?

তুমি বিশাল জঙ্গল থেকে কোনো প্রাণী শিকার করে নিয়ে আসতে অনেক দেরি হবে।

ততক্ষণে আমাদের অতিথিরা ক্ষুধায় কাতর হয়ে পড়বেন। আমাদের ছাগলটাকে জবের ব্যবস্থা করো।

অতিথিদের জন্য আজ আমরা ছাগলের মাংস রান্না করবো। হাতেম তাই বললেন রান্না হওয়ার পর আমরা তৃপ্তির সাথে খেলাম।

আরো পড়ুন –

হাতেম তাই ও বুড়ি মা

বিশ্রাম নিয়ে আমরা আবার চলতে শুরু করলাম। পথিমধ্যে আমার সঙ্গী বললও আসলে ছাগলটি বৃদ্ধার একমাত্র অবলম্বন। দুধ বিক্রি করে তিনি সংসার চালাতেন।

আমি আবার ফিরে গেলাম বৃদ্ধার কাছে বললাম তুমি আমাকে চিনো না। আমি হাতেম তাই।

সবাই আমাকে দাতা হাতেম তাই বলে তুমি যদি তোমার ছেলেকে নিয়ে আমার বাড়িতে আসো তোমাকে আমি উপযুক্ত মূল্য ও উপহার সামগ্রী দিব।

বৃদ্ধা বললেন মাফ করবেন জনাব। কোন প্রতিদান এর আশায় আমরা অতিথিসেবা করিনা।

অতিথি মানে আমাদের কাছে আল্লাহর মেহমান। হাতিম তাই বললেন আজ পর্যন্ত সেই নারীকে আমি কোন প্রতিদান দিতে পারিনি। সেই মহিয়ান নারীর মতো হয়তো আমরা হতে পারব না।

কিন্তু জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আমাদের কাছে পরিষ্কার থাকা উচিত।

তাহলে আমরা এই পৃথিবীতে নিজের জন্য নিজের, সন্তানের জন্য, পরিজনদের জন্য যা উপার্জন করি এই পৃথিবীতে থেকে যাবে।

বাড়ি করলাম, গাড়ি করলাম, ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স আর সোনার গয়না করলাম। কিছুই যাবে না আমার সাথে। যখন মারা যাব সবে থেকে যাবে উত্তরাধিকারের জন্য।

যাবে শুধু স্রষ্টার সন্তুষ্টির জন্য নিঃস্বার্থভাবে আমি যা ব্যায় করলাম করলাম সেটুকুই।

যে কারণে অনেকে বলেন দান হলে পরকালের জন্য বিনিয়োগ। তা পরকালের জন্য আনন্দ বিরাট প্রতিদান বয়ে আনবে।

আপনি 5000 টাকা দিয়ে একটা দামী কাপড় কিনবে কিন্ত কিছুদিন পর এটা পুরনো হয়ে যাবে।

কিন্তু আপনি যদি একটু কম দামে কেনা চার বা হাজার টাকা দিয়ে কাপড়টি কিনে বাকি এক হাজার বা দুই হাজার টাকা দান করেন।

এটা বিনিয়োগ হয়ে গেল। অনন্ত কাল ধরে বিনিয়োগের সুফল পেতে থাকবেন।

About
Shah suhail

Use a dynamic headline element to output the post author description. You can also use a dynamic image element to output the author's avatar on the right.

Leave a Comment