গল্প, জীবন গল্প, শিক্ষনীয় গল্প

উপদেশ গল্প – কয়েকটি শিক্ষা মূলক গল্প

/

by Shah suhail

/

No Comments

একটি উপদেশ গল্প – গাধা ও তার মালিক।

একবার এক লোক তার গৃহ পালিত একটা গাধাকে খুব আদর করে তার ঘরের ছাদের উপর উঠলো।

ছাদের উপরে উঠানোর পর গাধাটাকে ঘুরিয়ে ফিরয়ে ছাদে চারদিকে দেখাতে লাগলো। লোকটিও সেটা এনজয় করছিলো।

যখন লোকটি দেখল গাধাটা তার ছাতার চাঁদ নষ্ট করে ফেলছে। তখন গাধাটাকে নিচে নামাতে চেষ্টা করলো। কিন্তু গাধা কিছুতেই নিচে নামতে চাইল না।

লোকটি অপারগ হয়ে গাধাকে রেখে নিচে নেমে এলো। নিচে নেমে আসার পর দেখল গাধাটা অবাক কান্ড করছে। ছাদের উপর পা দিয়ে ক্রমাগত আঘাত করে যাচ্ছে। 

সেই ছাদটি ছিল বেশ পুরনো। সেতসেতে ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা ছিল প্রবল।

লোকটি খুব ভয় পাচ্ছিল যে গাধাটা তার ঘরের ছাদটি ফুটো করে ফেলে নাকি।

সামনে বর্ষাকাল হাতে টাকা করি তেমন নেই। যদি ছাদটি ফুটো করে ফেলে তাহলে তো খুব দুর্ভগে পড়তে হবে। তাই সে আবার গাধার কাছে চলে গেলে।

সে পুনরায় গাধাকে নিচে নামানোর জন্য অনেক চেষ্টা করল।  কিন্তু তার সমস্ত চেষ্টা বিফল হল। গাধা কিছুতেই নিচে নামতে চাচ্ছে না।

কোনো উপায়েই গাধাকে তিনি নিচে নামাতে পারলেন না।

শেষমেষ যখন গাধাকে নিচে নামাতে তিনি চেষ্টা করলেন তখন গাধাটা লাথি মেরে লোকটিকে ছাদের নিচে ফেলে দিল।

ছাদের নিচে পড়ার পর লোকটির হাত পা ভেঙে গেলো। শরীরের বেশ কিছু অংশ থেকে অনবরত রক্ত পড়তে লাগলো।

এরপর দিকে তিনি দেখলেন গাধা সত্যি সত্যিই তার ঘরের ছাদ ফুটো করে ফেলছে। এমনকি ফুটো করার পরও থেমে থাকেনি।

সেই আরো বড় করছিলো। বড় করতে করতে একটি পর্যায়ে গাধা নিজের করা ফটো দিয়ে নিচে পড়ে গেল।

নিচে পড়ে গাধার পাগুলো ভেঙে গেলো। শরীরের বেশ কিছু অংশ থেকে রক্ত পড়তে লাগলো।

তখন লোকটি বুঝতে পারল গাধাকে ছাদের উপরে তোলা তার বেশ বড় ভুল ছিল। কেননা তাদের ছাদ পর্যন্ত উপরে ওঠার উপযুক্ত নয়।

উপদেশ গল্প – গাধা ও তার মালিক – গল্পে গল্পে উপদেশ

এই উপদেশ গল্প থেকে শিক্ষা –  যে ব্যক্তি যে আসনের উপযুক্ত নয়। তাকে সেই আসনে আসীন করা বিরাট  ধরনের ভুল।

যদি কোনো অযোগ্য ব্যক্তি তার যোগ্যতার চেয়ে বড় আসন পেয়ে বসে, তাহলে সে ব্যক্তি সেই আসনের মর্যাদা রক্ষা করতে পারেনা।

সেই আসনটি তার ক্রমাগত ভুলের কারণে ধ্বংস  করে ফেলে। এমনকি যারা তাকে এই আসনে তুলেছিল তাদেরকেও লাথি মেরে দূরে ফেলে দেয়।

এক পর্যায়ে এসে সেও ওই গাধার মত তার করা ফুটো দিয়ে নিচে পড়ে যায়।

তাই আমরা গল্প থেকে শিক্ষা নিতে পারি – কোন গাধা গর্ধব মূর্খ ব্যক্তিকে তার মর্যাদার চেয়ে উঁচু আসনে বসানোর ঠিক নয়।

যদি থাকে তার মর্যাদার চেয়ে উঁচু আসনে বসানো হয়। তাহলে সে ঐ আসুন প্রথমে ভেঙে ফেলবে।

তারপর যারা তাকে ওই আসনে তুলেছিল তাদের কে লাথি মারবো এবং নিজেও ধ্বংস হবে।

আরো পড়ুন –

উপদেশ গল্প – রুটি বিক্রেতা ও বাদশা

এটি একটি উপদেশ গল্প। এই গল্পে আমাদের সমাজের বাস্তবতা তুলে ধরা হয়েছে। আশা করি এই উপদেশ গল্প সবাই ইনজয় করবেন।

একটি শহরে একজন রুটি বিক্রেতা ছিল। সে তার প্রতিটি রুটি ৫ টাকা দরে বিক্রি করতো।

কিন্তু ৫ টাকা দরে রুটি বিক্রি করে সে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছিল।

সে চিন্তা করল কিভাবে রুটির দাম বাড়ানো যায়। সে এটা নিয়ে গভীর উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ল।

কেননা হঠাৎ করে রুটির দাম বাড়িয়ে দিলে লোকেরা বিক্ষোভ করে বসবে।

প্রতিবাদের ফলে বাধ্য হয়ে তাঁকে পুনরায় ৫ টাকায় রুটি বিক্রি করতে হবে।

এই বিষয়টি নিয়ে সাত-পাঁচ ভেবে রুটি বিক্রেতা তখনকার বাদশার দরবারে হাজির হল।

বাদশাকে গিয়ে তার দুরবস্থার কথা বুঝিয়ে বলল। বাদশা তার কথা শুনে বললেন – ওহো এটা কোন ব্যাপার হলো! তুমি চলে যাও। আমার উজিরে আজম এর কাছে।

তাকে গিয়ে ঘটনাটি খুলে বল। লোকটি উজিরে আজম এর কাছে গিয়ে তার মনের খায়েশ ব্যক্ত করল।

উজিরে আজম এটা শুনে বললেন – এটা নিয়ে কি এত ভাবতে হয়।

যাও গিয়ে প্রতিটি রুটির দাম ৩০ টাকা করে দাও। লোকটি অবাক হয়ে গেল।

আমি যেখানে প্রতিটি রুটির দাম ১০ টাকা করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছিলাম।

এখানে উজিরে আজম আমাকে ৩০ টাকা দরে বিক্রি করার অনুমতি দিয়ে দিলেন। লোকটি বেজায় মহাখুশি।

সে তার বাড়িতে ফিরে এলো। পর দিন ঘোষণা করে দিল এখন থেকে প্রতিটি রুটির দাম ৩০ দরে বিক্রি করা হবে।

মানুষের মধ্যে যখন এই সংবাদটি ছাড়াছাড়ি হয়ে গেলো। উজিরে আজম এখন থেকে ৩০ টাকা দরে রুটি বিক্রি করার জন্য অনুমতি দিয়ে দিয়েছেন।

রুটি বিক্রেতা ও বাদশা – গল্পে গল্পে উপদেশ

তখন মানুষেরা বিক্ষোভে ফেটে পরলো। সকল মানুষ এর প্রতিবাদ করতে শুরু করল। তখন বাদশা তার সিংহাসন থেকে নেমে সাধারণ মানুষের বিক্ষোভ আসলেন

আসার পর উচ্চস্বরে ঘোষণা দিলেন, আপনারা সবাই অসন্তুষ্ট হয়ে গেছেন ৩০ টাকার রুটির দাম শুনে। আপনাদের এই কষ্ট আমি সহ্য করতে পারছিনা।

আপনাদের কষ্ট দেখে আমারও কষ্ট হয়। তাই আমি আপনাদের এই কষ্টকে দূর করার জন্য এখন থেকে রুটির দাম অর্ধেক কমিয়ে দিচ্ছি।

৩০ টাকা থেকে ১৫ টাকায় প্রতিটি রুটি বিক্রি করতে হবে। আমি এখন থেকে ১৫ টাকা রুটির দাম নির্ধারণ করে দিচ্ছি।

যদি কোন ব্যক্তি এর থেকে বেশি দামে রটি বিক্রি করে তাহলে তার ওপর কঠোরভাবে আইন প্রয়োগ করা হবে। তাকে জেলে বন্দী করা হবে। 

হাবাগোবা লোকগুলো বাদশার এই কথাটা শুনে মহাখুশি। আমাদের বাদশা তো বাদশার মতই একটি কাজ করলেন।

একেবারে রুটির দাম অর্ধেক কমিয়ে দিলেন। সবাই বাদশাকে বাহবা দিকে দিতে বাড়িতে চলে গেল।

কিন্তু এটুকু ভেবে দেখল না  আসলেই কি তিনি রুটির দাম কমিয়েছেন? নাকি যে দাম ছিল সেই থেকে আর দ্বিগুণ বৃদ্ধি করে দিয়েছে।

প্রথমত রুটির দাম ছিল পাঁচ টাকা। কিন্তু এখন নতুনভাবে রুটিরর দাম নির্ধারণ করে দিলেন ১৫ টাকা।

তার মানে তিনি দাম কম করেন নি বরং প্রথম যে দাম ছিল তার থেকে দ্বিগুন দাম বারিয়েছেন।

রুটি বিক্রেতা ও বাদশা

এই উপদেশ গল্প থেকে শিক্ষা – আমরা যে দেশে রয়েছি। যে সমাজে বাস করছি। আমাদের দেশের আইন কানুনগুলো কি কই বাদশা আর রুটি বিক্রেতার মত নয়?

আমাদের দেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম তেলের দাম গ্যাসের দাম, হুট করে দ্বিগুণ থেকে চার গুণ চার গুন থেকে পাঁচ গুণ বৃদ্ধি করা হয়।

তারপর মানুষ যখন এটা নিয়ে কানাঘুষা শুরু করে। এটা নিয়ে কথা বলা শুরু করে সোশ্যাল মিডিয়ায় বলেন আর মাঠে-ময়দানে বলেন।

তখন আমাদের সরকার মহোদয় মানুষের সাথে অনেকটা মশকরা মূলক ভাবে বলতে থাকেন – আমরা আপনাদের দুঃখ-দুর্দশা বুঝি। এখন থেকে যেতাম বৃদ্ধি হয়েছিল তার থেকে ৫ টাকা কমানো হবে।

কিন্তু বাস্তবতা হলো দাম কমানো হয়নি। পূর্বে যে দাম ছিল তার চেয়ে দ্বিগুণ অথবা তার চেয়ে বেশি বৃদ্ধি করা হয়েছে।

আমরা সাধারন মানুষগুলো রাজনীতির সেই মারপ্যাঁচ না বুঝে মহাখুশি হয়ে পড়ি।

অতপর নিজের সীমিত উপার্জন দিয়ে অনাহারে-অর্ধাহারে দিন গুজার করেও সরকারের গুণগান গাইতে থাকি।

সুপ্রিয় পাঠক আমরা আমাদের এই ওয়েব সাইটে উপদেশ গল্প বা গল্পে গল্পে উপদেশ দিয়ে থাকি। আপনাদের মতামত ও পরামর্শ কমেন্ট করে জানাবেনা।

About
Shah suhail

Use a dynamic headline element to output the post author description. You can also use a dynamic image element to output the author's avatar on the right.

Leave a Comment